সিকিউরিটি গার্ড কোম্পানী বিভিন্ন চটকদার বিজ্ঞাপন দিয়ে রমরমা প্রতারণা বাণিজ্য

 

মো: বশির আলম, টঙ্গী :

 

বাংলাদেশের মোট জনসংখ্যা শিক্ষিত জনগোষ্ঠীর বিশাল একটি অংশ বেকারত্বের অভিশাপে নিমজ্জিত। দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলের বেকার যুবগোষ্ঠী কর্মের সন্ধানে রাজধানী ঢাকাসহ আশপাশে নারায়ণগঞ্জ, গাজীপুর ও সাভার বিভিন্ন স্থানে অবস্থান নিয়ে থাকে। আবার করোনা মহামারির কারণে বিভিন্ন অফিস আদালত, কল-মিলকারখানাসহ বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে কর্মী ছাটাইয়ের কারণে অনেকে বেকার হয়ে পড়েছে। এই বেকারত্ব জনগোষ্ঠীর সাথে বিভিন্ন প্রতারক চক্র সিকিউরিটি গার্ডসহ বিভিন্ন কোম্পানীর নামে চটকদার বিজ্ঞাপন দিয়ে অসহায় চাকুরী প্রত্যাশীদের সাথে প্রতারণা করে আসছে।

দৈনিক আমার প্রাণের বাংলাদেশের প্রতিনিধি এ বিষয়ে একটি অনুসন্ধান সাভার, আশুলিয়া, নরসিংপুর, রাইট ফোর্স সিকিউরিটি নামে একটি প্রতিষ্ঠানে অনুসন্ধানে বেরিয়ে আসে নানা অনিয়মের তথ্য। চটকদার বিজ্ঞাপনে লেখা রয়েছে বাংলাদেশ সরকার অনুমোদিত লাইসেন্স নাম্বার-১১৮৪৪১। যে সকল পদে জনবল নিয়োগ করা হইবে-সুপারভাইজার-১৫জন, সহকারী সুপারভাইজার-২০জন, শো-রুমের গার্ড-২০জন, স্পেশাল গার্ড-২৫জন, সাধারণ গার্ড-২৫জন, বেতন যথাক্রমে-১২/১৫ হাজার টাকা।

বিজ্ঞপ্তিতে দেয়া মুঠোফোনে কথা হয় কোম্পানীর রিকুটিং অফিসার জুয়েলের সাথে। জুয়েল জানান, আমার পদবী রিকুটিং অফিসার, আমার কাজ কোম্পানীতে লোক সংগ্রহ করে দেয়া, বেতন ১৪ হাজার টাকা। এক্ষেত্রে কিছু নিয়ম বেঁধে দেয়া আছে। কমপক্ষে মাসে ১৫জন লোক ভর্তি করাতে হবে। প্রতিজনের কাছ থেকে পোশাক ও আনুসাঙ্গীক বাবদ ২৭৫০ টাকা নেয়া হয়। একই ভাবে কোম্পানীর আরেকজন রিকুটিং জামাল জানান, আমাদের কাজটা জুয়েল যেমন জানিয়েছেন ঠিক একই ভাবে।

জামালের কাছ থেকে আরো জানা যায়, এই কোম্পানীতে বর্তমানে ১২/১৫জনের মতো রিকুটিং অফিসার রয়েছে। কোম্পানীর বৈধতার বিষয়ে জানতে চাইলে জামাল জানান, কোম্পানীর ব্রাঞ্চ ম্যানেজার তাইমুর রহমানের সাথে কথা বলেন।

এ বিষয়ে ব্রাঞ্চ ম্যানেজার তাইমুর রহমানের সাথে মুঠোফোনে তাদের কোম্পানীর বৈধতার বিষয়ে জানতে চাইলে তাদের দেয়া বিজ্ঞাপনে সরকার অনুমোদিত নাম্বারটি কিসের, সে জানান এটি জিহাদ কোম্পানীর। আমাদের কোম্পানীর মালিক কাওসার আহমেদ বিজয় চৌধুরী। আমরা কোম্পানীর নামে ইউনিয়ন পরিষদে ট্রেড লাইসেন্স করার জন্য কাগজপত্র জমা দিয়ে আবেদন করেছি। জানতে চাওয়া হইলে আসলে কি ট্রেড লাইসেন্স বা অন্য কোম্পানীর নামে সনদ দিয়ে রাইট ফোর্স সিকিউরিটি কোম্পানী চালানো কতটুকু আইন সম্মত। কোম্পানীর বৈধতার বিষয় টিআইএন, এনওসি, থানা ক্লিলিয়ারেন্স, কর্মসংস্থান বিভাগ সম্মতিপত্র, লোকবল সরবরাহকৃত বৈধ কোম্পানীর সাথে কোম্পানীর চুক্তি সাধন কোন বিষয় সঠিক কোন উত্তর দিতে পারেননি ব্রাঞ্চ ম্যানেজার তাইমুর রহমান।

তিনি বলেন, জিহাদ কোম্পানীতে আমাদের নিজস্ব চাকুরীর পথ খালি রয়েছে। আপনি কোম্পানীর চেয়ারম্যানের সাথে কথা বলেন। এ বিষয়ে কোম্পানীর কাওসার আহমেদ বিজয়ের মুঠোফোনে কথা হলে তিনি জানান, রাইট ফোর্স সিকিউরিটি মালিক আমি ঠিকই। কিন্তু বর্তমানে তা দেখা শুনা করেন তাইমুর রহমানসহ ওদেরকে দিয়ে দিয়েছি। এটার বিষয়ে এখন ওরা দেখবে।

আমি জিহাদ সিকিউরিটির মালিক, যাহা মহাখালী ১০২/৮ অবস্থিত। আমার কোম্পানীর সকল কাগজপত্র বৈধ। আমি নিজে বনানী প্রেসক্লাবের সভাপতি এবং জাগো বাংলা নিউজ, ঢাকা ক্রাইম নিউজ অনলাইনের সম্পাদক। আপনার কিছু জানা থাকলে অফিসে এসে দেখা করবেন। ঢাকাসহ আশপাশে চাকুরী প্রত্যাশিত অসহায় গরিব লোকদের সাথে এমন প্রতারণা জাল পেতেছে অসংখ্য সিকিউরিটি গার্ড নামক অবৈধভাবে বিভিন্ন কোম্পানী। অনুসন্ধানে বেশ কিছু কোম্পানীর নাম এসেছে। কে এস, এলএসএল কোম্পানী, অফিস ১৫০/এ, রোকেয়া স্মরণী, মিরপুর, ঢাকা। আনন্দ সিকিউরিটি অফিস ৭৯৪ কাজী পাড়া, ওভারব্রীজ সংলগ্ন, ইসলামী ব্যাংকের ৬ষ্ঠ তলা, মিরপুর, ঢাকা। ন্যাশনাল সিকিউরিটি এন্ড ম্যানেজম্যান্ট কোম্পানী ক-৬৪/১, নর্দ্দা বাস স্যান্ড, বাড়িধারা, গুলশান-২, সাবেক ক্যামব্রিয়ান হোস্টেলের ২য় তলা। মেরিন সিকিউরিটি এন্ড লজিস্টিক সার্ভিস অফিস মজুমদার কমপ্লেক্স ১৭৩৬ জনতাভাগ, গ্যাস রোড, কদমতলী, রায়েরবাগ, ঢাকা। সূর্য বিডি সিকিউরিটি সার্ভিস লি:, যমুনা ফিউচার পার্কের বিপরীত পাশের্^ প্রগতি স্মরণী রোড, বসুন্ধরা, ঢাকা। ঠিকানা কর্ম কোম্পানী লি: অফিস ৫৮/২, ওয়াবদা রোড, পশ্চিম রামপুরা, ঢাকা। সৃজন সিকিউরিটি সার্ভিস লি:। অফিস-ধউর চৌরাস্তা, আশুলিয়া সুন্দরবন কুরিয়ার সার্ভিস লি: সংলগ্ন সিটি ব্যাংকের পাশের্^। দক্ষিণবঙ্গ সিকিউরিটি সার্ভিস লি:, অফিস-সেকশন-৯, ব্লক-ডি, রোড নং-২০, বাড়ি নং-২২, পল্লবী মিরপুর, ঢাকা। লাইফ সেইফ প্রাইভেট লি:, ঠিকানা-০১৩১৩৮৯০৯৩৩। দিকরা লজেস্ট্রিক কোম্পানী লি:, অফিস-২৭৯ হাদী প্লাজা, মাজার রোড, ১নং কলোনী, মিরপুর-১, ঢাকা। আনোয়ারা কোম্পানী লি:, অফিস-১২৫২/৩, পূর্ব মনিপুর, রোকেয়া স্মরণী মিরপুর-১০, ঢাকা। ধানসিঁড়ি লজেস্ট্রিক সার্ভিস লি:, অফিস-গুলশান, বাড্ডা লিং রোড, রোড নং-৬, হাউজ নং-১১, ২য় তলা। এ সকল কোম্পানী ছাড়া আরো অসংখ্য ছড়িয়ে ছিটিয়ে ঝাল বিস্তার করে রেখেছে প্রতারক চক্ররা।

এই প্রতারক চক্রদের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট বিভাগ, প্রশাসন অতি দ্রুত আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ না করলে সাধারণ গরিব অসহায় লোকগুলো একের পর এক প্রতারিত হয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হবে। এমনকি আস্তা হারিয়ে ফেলবে বৈধভাবে যেসকল সিকিউরিটি গার্ড সার্ভিস কোম্পানীগুলো নিয়োগ প্রদান করে থাকে।