Amar Praner Bangladesh

“সৌরভ নেই, আছে শুধুই স্মৃতি : ছাত্রাবাসের আসবাবপত্র নিতে এসে কাঁদলেন স্বজনরা…!”

আর আই সবুজ, নওগাঁ প্রতিনিধি ঃ  “চোখ বুঝিলেই দুনিয়া আন্ধার, হায়রে…. কিসের বাড়ি, কিসের ঘর-আইলে ভবে যেতে হবে, ভাবলাম না একবার…” শিল্পী আব্দুল জব্বারের কণ্ঠের এ গানটিই যেন আজ মেধাবী কলেজ ছাত্র সৌরভের জন্যই প্রযোজ্য। এ কেমন বিদায় এ কেমন রেখে যাওয়া স্মৃতি…! সৌরভ আজ আর নেই এই পৃথিবীতে । কিন্তু তার রেখে যাওয়া আসবাবপত্র গুলো নওগাঁর নজিপুর পৌর এলাকার আলহেরাপাড়ার মামুন ছাত্রাবাস হতে নিতে এসে সৌরভের আপন জনেরা দু’চোখের পানি ধরে রাখতে পারেননি!
সৌরবের বাইসাইকেল, বেড-বিছানা, লেপ-তোষক, গদি, চৌকি, জামা-কাপড়, বই-পুস্তকসহ ব্যবহৃত আসবাবপত্রাদি ওই ছাত্রাবাস হতে নিতে এসে নিকট আত্মীয়রা শুধুই আফসোস আর কান্না কণ্ঠে… সৌরভের জন্য দোয়া করছেন যেন মহান আল্লাহ বেহেস্ত নসিব করেন তাকে। আর নিরপরাধ মেধাবী কলেজ ছাত্র সৌরভকে যারা খুন করেছেন তাদের যেন আল্লাহ বিচার করেন। এটাই তাদের কামনা, আর দু’ চোখ ভরা কান্না। নজিপুর সরকারি কলেজে অধ্যয়নরত অবস্থায় সৌরভ উল্লেখিত ছাত্রাবাসে থাকতেন।
নজিপুর আলহেরা পাড়ার মামুন ছাত্রাবাসের ম্যানেজার ও নজিপুর আল আকাবা জামে মসজিদের মুয়াজ্জিন মোঃ আজাদুল ইসলাম আজাদ জানান, সৌরভের সাথে আমার বন্ধুর মত চলাফেরা এই মেসে। সৌরভ নিয়মিত নামাজ আদায় করতেন। আমাদের মেসে থাকাকালে সৌরভ জুনিয়রদেরকেও তুই বা তুমি বলা কখনো শুনতে পাইনি। বরং নাম ধরেও না ডেকে ভাই বলে সকলকে সম্মোধন করতেন। নিসন্দেহে সৌরভ ভদ্র ও সামাজিক প্রকৃতির পরিবারের মেধাবী কলেজ ছাত্র ছিলেন। উল্লেখ্য, গত ২ ডিসেম্বর বগুড়ায় সৈনিক পদে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে নিয়োগের একটি পরীক্ষা দেবার পর নিজ বাড়ি ফিরার পথিমধ্যে ছিনতাইকারীদের কবলে পড়েন ও ছুরিকাঘাতে নির্মমভাবে খুন হয়েছিলেন। এ ঘটনায় ৩ ডিসেম্বর সৌরভের পরিবার বাদী হয়ে বগুড়া সদর থানায় অজ্ঞানামা ১০/১২ জনের বিরুদ্ধে একটি হত্যা মামলা করেন। সে নওগাঁর পতœীতলা উপজেলা সদরে অবস্থিত নজিপুর সরকারি কলেজের মেধাবী ছাত্র সাব্বির হোসেন সৌরভ (১৭) । বগুড়া গিয়ে লাশ হয়ে ফিরলেন ও এইচএসসি পরীক্ষা দেওয়া আর হলো না। দেশ প্রেমের কর্মস্থল হিসেবে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে ভর্তির স্বপ্ন যেন স্বপ্নই রয়ে গেল… সৌরভের ! জানা যায়, সৌরভের গ্রামের বাড়ি নওগাঁ জেলার মহাদেবপুর উপজেলার রাইগাঁ ইউনিয়নের কুড়াইল গ্রামে ও তার পিতার নাম মো: মোজাম্মেল হক। প্রকাশ থাকে যে, সে নজিপুর সরকারি কলেজের এইচএসসি দ্বিতীয় বর্ষের বিজ্ঞান বিভাগের মেধাবী ছাত্র ২০১৮ ইং সালের এইচএসসি পরীক্ষার্থী ছিলেন। সৌরভ গত ০২/১২/২০১৭ইং তারিখে বগুড়ায় সেনাবাহিনী চাকুরির নিয়োগের পরীক্ষার জন্য গিয়েছিল। সেখানেই ওইদিন সন্ধ্যায় ছিনতাইকারীরা তাকে ধরে ফেলে। এক সময় ধস্তা-ধস্তির এক পর্যায়ে ছিনতাইকারীরা তাকে ধারালো ছুরি দিয়ে আঘাত করে। পরে স্থানীয়রা উদ্ধার করে সৌরভকে রাতেই বগুড়ার শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। পরে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে (সৌরভকে) মৃত ঘোষণা করেন। এ খবর সৌরভের গ্রামের বাড়ি ও তার আত্মী-স্বজন এবং বন্ধু-বান্ধবরা জানলে কান্নায় অনেকেই ভেঙ্গে পড়েন। এখনো সৌরভের জন্মভূমি কুড়াইল গ্রামে চলছে শুধুই শোকের মাতম। নজিপুর সরকারি কলেজের বাংলা বিভাগের শিক্ষক গোলাম মোস্তফা বলেন, সৌরভ খুব ভদ্র মনের ও মেধাবী ছাত্র ছিলেন। বর্তমানে সৌরভের কলেজের সহপাঠীরা তাকে হারায়ে অনেকেই মানসিক ভাবে দুর্বলতা বোধ ও শোকাহত।
উল্লেখ্য যে, এ ঘটনায় হত্যাকারীদের দ্রুত গ্রেফতার ও অপরাধীদের ফাঁসির দাবিতে ৬ ডিসেম্বর নজিপুর কলেজের শিক্ষার্থী ও শিক্ষকরা মানববন্ধন ও শোক সভার আয়োজন করেন।